ইসোমিপ্রাজল কিসের ঔষধ খাওয়ার নিয়ম|Esomiprazole 20mg

ইসোমিপ্রাজল কিসের ঔষধ এবং খাওয়ার নিয়ম কি সাইড এফেক্ট সহ বিস্তারিত জেনে নিন। Esomiprazole 20mg ক্যাপসুল কেন খায়, কিসের ঔষধ? খাওয়ার নিয়ম ও গর্ভাবস্থায় খাওয়া যাবে কিনা ইত্যাদি।

প্রতিটি এন্টেরিক কোটেড ট্যাবলেট অথবা ক্যাপসুলে ইসোমিপ্রাজল ম্যাগনেশিয়াম ট্রাইহাড্রেট ইউ এস পি ২০ ও ৪০ মিলিগ্রাম এর সমতুল্য এসোমিপ্রাজল থাকে।

ইসোমিপ্রাজল কি কাজ করে

ইসোমিপ্রাজল প্রোটন পাম্পকে (H+-K+ ATPase) বাধা দেয়ার মাধ্যমে এসিডিটি নিরাময়ে কাজ করে। প্রোটন পাম্পের মাধ্যমে H+ তৈরি না হওয়ায় এসিডিটি কমে যায়। মুলত ইসোমিপ্রাজল হলো গ্যাস্ট্রিক এসিডিটির ঔষধ।

ইসোমিপ্রাজল কিসের ঔষধ Esomiprazole 20mg

FDA কতৃক ইসোমিপ্রাজলকে ইরোসিভ ইসোফ্যাগাইটিসের চিকিৎসায় এবং ক্লারিথ্রোমাইসি এবং এ্যামোক্সিসিলিনের সাথে কম্বাইন্ড ট্রিটমেন্ট হিসাবে H pylori Infection এর জন্য অনুমোদিত। এছাড়াও যেকোন ব্যথানাশক NSID জাতীয় ঔষধ সেবনের ফলে সৃষ্ট আলসারের চিকিৎসায় FDA কতৃক অনুমতি প্রাপ্ত।

ইসোমিপ্রাজল এর কাজ কি Esomiprazole 20mg

ইসোমিপ্রাজল গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স রোগে কাজ করে।
ইসোফেগাইটিসের রিলেপস্ প্রতিরোধ ও দীর্ঘমেয়াদী ম্যানেজমেন্টের জন্য দেয়া হয়।
ইরোসিভ রিফ্লাক্স ইসোফ্যাগাইটিস এর চিকিৎসায় ইসোমিপ্রাজল কাজ করে।

ইসোমিপ্রাজল খাওয়ার নিয়ম Esomiprazole 20mg

ইরোসিভ ইসোফগাইটিস এর জন্য ২০-৪০ মিগ্রা দৈনিক ১ বার, ১-২ মাস খেতে হয়।
ইরোসিভ ইসোফেগাইটিসের ম্যানটেনেন্স মাত্রা হলো- ২০ মিগ্রা করে দিনে ১ বার। সর্বোচ্চ ৬ মাসের বেশী খাওয়ার ইতিহাস নেই। সিম্পটোমেটিক গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লেক্স নিরাময়ের জন্য, ২০ মিগ্রা করে দিনে ১ বার ১ মাস পর্যন্ত। তবে এতেও যদি ইম্প্রুভ না হয়- পরবর্তী আরও ১ মাস চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে খাওয়া যেতে পারে।

শিশুদের জন্য ইসোমিপ্রাজল এর ব্যবহার

শিশুদের জন্য FDA কতৃক অনুমোদন হলো- ১ মাস বয়সের পর থেকেই, তবে তা অবশ্যই রেজিস্ট্রার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ২০ কেজি পর্যন্ত শিশুর ক্ষেত্রে ওজন অনুসারে ৫-১০ মিগ্রা রোজ ১ বার।

ইসোমিপ্রাজল এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কি

ইসোমিপ্রাজল এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার মধ্যে মৃদু ও অস্থায়ী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলো- মাথাব্যথা, ডায়রিয়া, বমিবমি ভাব, তলপেটে ব্যথা ও সাময়িক কোষ্ঠকাঠিন্য ইত্যাদি। এগুলো সচরাচর নয়, এবং খুবই ক্ষনস্থায়ী হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ইসোমিপ্রাজল খাওয়া যাবে কিনা

গর্ভাবস্থায় ইসোমিপ্রাজল সতর্কতার সাথে সেবনের কথা বলা হলেও অনেক চিকিৎসক প্রেসক্রাইব করে থাকেন। তাই বলা যায় তেমন কোন ঝুকি নাই সম্ভবত। তবে চিকিৎসক যদি মনে করেন, খাওয়া অনুচিত তবে না খাওয়াই ভাল। মাতৃদুগ্ধে নিঃসরণ হয় কিনা এখনো জানা যায়নি।

https://capsytab.com/erectal-disfungtion/

অন্য ঔষধের সাথে ইসোমিপ্রাজলের মিথষ্ক্রিয়া

ইসোমিপ্রাজল ব্যবহারের সময় কেটোকোজল এর শোষণ কমে যেতে পারে। যখন ডায়াজিপাম, ইমিপ্রামিন, ক্লোমিপ্রামিন, ফেনিটোয়েন, এর ইসোমিপ্রাজল ব্যবহার করা হয়, তখন মাত্রা কম রেখে খাওয়া উচিত।

ইসোমিপ্রাজল এর কয়েকটি ব্র্যান্ডের নাম

Esomiprazole 20mgম্যাক্সপ্রো-২০ ও ৪০ ট্যাবলেট ও ক্যাপসুল, নেক্সাম ২০ ও ৪০ ক্যাপসুল, ইসোরাল ২০ ও ৪০ টয়াবলেট ও ক্যাপসুল, সারজেল ২০ ও ৪০ ক্যাপসুল, সোমপ্রাজ ২০ ৪০ ক্যাপসুল, এক্সিয়াম ২০ ও ৪০ ক্যাপসুল, ইমেপ ২০ ও ৪০ ক্যাপসুল ইত্যাদি। এগুলো সবই ভাল মানের কোম্পানির ইসোমিপ্রাজল ঔষধ।

আরও পড়ুন – ফেক্সো ফেনাডিন কিসের ঔষধ জেনে নিন

Leave a Comment

হারবাল ঔষধের জন্য ক্লিক করুন