দুর্বলতার হোমিও ঔষধের নাম কি

দুর্বলতার হোমিও ঔষধ আছে একথা অনেকেই বিশ্বাস করতে চাননা, তাদের জন্য আজকের এই লখা। দুর্ব্বলতা দূর করতে হোমিও ঔষধের আছে চমৎকার ফলাফল। তবে তা রোগীর শারীরিক গঠন, লক্ষন ও উপসর্গের উপর পরীক্ষা নীরিক্ষা করে সঠিক হোমিও ঔষধ প্রয়োগ করতে পারলে ভাল রেজাল্ট পাওয়া যাবে।

স্নায়ুবিক দূর্ব্বলতার হোমিও ঔষধের নাম

এসিড ফস- স্নায়ুবিক দুর্ব্বলতা বলতে মাথা ব্যথা, মাথা ঘোরা, বুক ধরপর করা, ইন্দ্রিয়জনিত অবসন্নতা, হাত পা ঝিমঝিম করা, স্মৃতিশক্তি লোপ, চিন্তাশক্তির লোপ, কথা বলতে অনিচ্ছা, এছড়াও পেটফাঁপা, অজীর্ণ, অনিদ্রা, ভয়-ভীতি, ইত্যাদি রোগের লক্ষনে- এনাকার্ডিয়ম, আর্জেন্ট নাইট্রিকাম, এম্ব্রোগ্রেসিয়া, এসিড পিক্রিক, ক্যালি ব্রোম, জিঙ্কাম, ফসফরাস, এসিড ফস, জেলসিমিয়ম, মস্কাস ইত্যাদি লক্ষনভেদে এসব রোগের সাধারন হোমিও ঔষধ।

ফস্ফরিক এসিড

ফস্ফরিক এসিডের রোগী- সামান্য পরিশ্রমেই দুর্ব্বলতা অনুভব করে, রমনিচ্ছা থাকে অত্যান্ত, অধিকন্তু লিঙ্গোদ্রেক, তাতে হয়ত সারা রাত জেগে থাকতে হয়। পরে প্রচুর পরিমানে রেতঃস্খলন হয়, এবং অবসন্ন হয়ে পড়ে। তাকে ফস্ফরিক এসিডের দ্বারা চিকিৎসা করা যাবে।

এসিড পিক্রিক

ডাঃ ন্যাস বলেন- স্নায়ু দুর্ব্বলতার যত ঔষধ আছে, অতীশয় ইন্দীয়চালনা রোগের কারন হলে, এসিড পিক্রিক সবচেয়ে ভাল একটি হোমিও ঔষধ। যেসব রোগীদের জন্য প্রযোজ্য- তারা সদায় মনমরা থাকবে, সারাদিন শুধু শুয়ে থাকতে ইচ্ছা করবে, উদাসীনতা, চোখে অন্ধকার দেখবে, কোন কাজে মনোযোগ থাকবেনা কিন্তু কাজ টিকই করবে, পা গুলো ভারবোধ মনে হবে, কোমড়ে ব্যথা ও গায়ে জ্বালা পোড়া অনুভব হবে। এই লক্ষণগুলো থাকলে এসিড প্রিক্রিক দিয়ে চিকিৎসা করা যাবে।

দুর্ব্বলতার সুপার টনিক এলফালফা (Alfalfa)

আমেরিকার মেষ ও ছাগলের উৎকৃষ্ট পুষ্টিকর খাবারের চাহিদা পুরণের জন্য, কাঁচা আলফালফা গাছ সংগ্রহ করে স্পেশাল খাবার হিসাবে দেয়া হয়, যেন খুব তাড়াতাড়ি তাদের শারীরিক বিকাশ ঘটে। তাই বলে এটা গরু বা ছাগলের ঔষধ নয়। এই গাছের পাতা, কান্ড ও মুল থেকে আহরিত টিংচার দিয়ে অনেক মুল্যবান ঔষধ তৈরি করা হয়, তার নামই এলফালফা যা দুর্ব্বলতার সুপার টনিক।

এলফালফার কাজ কি

এলফালফা হোমিও ঔষধটি নিয়মিত সেবনে ক্ষুধা ও বল শক্তি দিন দিন বৃদ্ধি পায়, দুর্ব্বলতা দূর হয়, খাদ্য সহজে হজম হয়ে দৈহিক ও মানসিক কর্মক্ষমতা অনেকাংশে বেড়ে যায়। মাংসপেশির বৃদ্ধি, ওজন বৃদ্ধি, স্নায়ুবিক দুর্ব্বলতা, অনিদ্রা, স্নায়ুর বৈকল্যজনিত সমস্যায় খুবই কার্যকর।

এলফালফা খাওয়ার নিয়ম

এলফালফা খাওয়ার নিয়ম- Alfalfa Q মাদার টিংচার বয়স অনুযায়ী ৫-১০ ফোটা আধা কাপ পানিতে মিশিয়ে দৈনিক ৩-৪ বার পুরোপুরি ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত আলফালফা খেয়ে যেতে হবে।

এসিড ফস কিসের হোমিও ঔষধ

যেসমস্থ বাড়ন্ত ছেলেরা খুব তারাতারী বেড়ে উঠে তাদের জন্য এসিড ফস খুব দরকার। এসময় একধরনের ক্ষয় হয় তা থেকে এসিড ফস তাদেরকে রক্ষা করতে পারে। এছড়াও নার্ভাস ডিভিলিটিতেও এসিড ফস কাজ করে।

ন্যাট্রাম মিউর কিসের ঔষধ

ন্যাট্রাম মিউর হচ্ছে ক্ষয়জনিত দুর্ব্বলতা, প্রচুর ক্ষুধা হয়- এবং খেতেও পারে তবুও সে দুর্বল, রোগীর কাদার অভ্যাস আছে, সামান্যতে কেদে ফেলে, রোগীর ঘাম বেশি হয়, এসব লক্ষন থাকলে ন্যাট্রাম মিউর দিয়ে চিকিৎসা করা যাবে।

সকল হোমিও ঔষধই কোন হোমিও ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সেবিন করতে হবে। অন্যথায় উপকারের চেয়ে ক্ষতি হওয়ার আশংকা থাকতে পারে। কোন বিষয়ে জানতে চাইলে কমেন্ট করবেন।

আরো পড়ুন- Virux 200 mg|ভাইরাক্স ট্যাবলেট কিসের ঔষধ

Leave a Comment

হারবাল ঔষধের জন্য ক্লিক করুন